মসজিদে শীবসেনার অঅক্রমন

লিখেছেন লিখেছেন দ্য স্লেভ ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ০৯:০২:৩৯ রাত

বাংলাদেশ একটি সাম্প্রদায়িক সম্প্রিতীর দেশ, এটা প্রমানিতভাবে সত্য। আপনি এখানে কখনও শুনবেন না দলবদ্ধভাবে মুসলিমরা হিন্দুদের উপর বা অন্য ধর্মাবলম্বীদের উপর আক্রমন করেছে। ব্যক্তিগত রেষারেষীতে দু একটা অঘটন ঘটেছে এবং সেটা অন্য মুসলিমদের দ্বারা তিরষ্কৃত হয়েছে। সংখ্যাগত দিক থেকে হিন্দুরা অনেক কম হলেও মুসলিমরা তাদেরকে শক্তিমত্তা প্রদর্শন করেনি বরং সর্বদা নানান সহযোগীতা করেছে। তাদেরকে তাদের নায্য অধিকার প্রদানে সোচ্চার হয়েছে। তাদের পূজার সময়ে মন্দীরের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দিয়েছে। নিজেদের বিশ্বাস থেকেই তারা তা করেছে। রসূল(সাঃ)বলেন-'মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ এলাকায় অমুসলিমরা হল আমানত।'....আর মুসলিমরা এই আমানত রক্ষা করে। তাদেরকে আপন মনে করে। আমরা ছোটবেলা থেকেই তাদের সাথে মিশে বড় হয়েছি এবং তারা সর্বদা সহযোগীতা পেয়েছে।

পক্ষান্তরে ভারত পত্র পত্রিকায়,বই পুস্তকে অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত, কিন্তু তার নিত্য দিনের কর্ম তৎপরতা তাকে দুনিয়ার বুকে একটি চরমপন্থী সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রের মর্যাদা প্রদান করে। মুসলিমদেরকে তারা জানের দুশমন মনে করে যদিও তারা শান্তিপ্রিয়। কোনো রকম উস্কানী ছাড়াই তারা ছোট মানের হামলা করে,এরপর মুসলিমরা অস্তিত্ব রক্ষায় প্রতিবাদ করলে বড় রকমের হামলা করে। দলবদ্ধভাবে নিরিহ মুসলিমদের উপর অস্ত্র নিয়ে হামলা করে হত্যা করে প্রকাশ্যভাবে। আর স্বয়ং রাষ্ট্রীয় পুলিশ সেসব কাজে সহযোগীতা করে। এমনই ভয়ষ্কর নির্দয় ও নিষ্ঠুর যে, চরম অসহায় হওয়া সত্ত্বেও ক্ষমা করেনা, মজলুমকে হত্যা করে। হত্যা করে পুড়িয়েও ফেলেছে। আর মুসলিমদেরকে হত্যা করলে বিশ্ব মিডিয়া চুপচাপ হয়ে যায়,যেন কিছুই ঘটেনি।

কয়েক বছর আগে ভারতের রাষ্ট্র প্রধান হিসেবে মোদী ছ্যাচড়া আসার পর তার মদদপুষ্ট দলসমূহ মুসলিমদের উপর নারকীয় কর্মকান্ড পরিচালনা করতে শুরু করে যা এখনও মহাসমারোহে চলছে। সম্প্রতি দিল্লী জামে মসজিদে শিবসেনারা আগুন দিয়েছে, মুসলিম হত্যা করেছে,মসজিদের মিনারে হনুমান দেবতার পতাকা উড়িয়েছে। নিরস্ত্র মজলুম মুসলিমদেরকে মেরে তাদের মসজিদ দখল করেছে। এই হচ্ছে তাদের বীরত্ব ! একের পর এক এরকম ঘটনা ঘটে এবং বিশ্ব মিডিয়া,সুশীল চুতিয়া পুরোপুরি নিরব নিশ্চুপ হয়ে যায়। বাংলাদেশ -ভারতে কোনো ঘটনা ঘটলেই যেসব লোক মুখে ফেনা তুলে ফেলে তাদের কোনো দেখা নেই। অসাম্প্রদায়িক সাজা এসব লোকগুলো পিওর কুত্তার বাচ্চা,পেইড দালাল।

তবে ঘটনা যাই ঘটুক, যুলুমের অবসান হবেই ইনশাআল্লাহ। পৃথিবী তার শেষ দিনগুলো অতিবাহিত করছে। বাড়াবাড়ি এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে যাবে। খুব দ্রুত নির্ধারিত হয়ে যাবে ভাগ্য। অযোগ্য নিকৃষ্ট লোকের শাসন চলছে, তাদের শাসন আরও নিকৃষ্টতার দিকে নিয়ে যাবে, এক সময় ভালো মানুষের বিজয় হবে ইনশাআল্লাহ।

বিষয়: বিবিধ

৮৮৯ বার পঠিত, ০ টি মন্তব্য


 

পাঠকের মন্তব্য:

মন্তব্য করতে লগইন করুন




Upload Image

Upload File